Author: Asmania

জয় জয় রসগোল্লা – মানস বন্দ্যোপাধ্যায়

বাংলার এখন রোজকার জীবন বেশ তিতকুটে , পানসেও বলা চলে। বঙ্গকুমার ও কুমারীদের এখন মিষ্টিতে রুচি নেই। জিমে ক্যালোরি ঝরিয়ে , সিদ্ধ কিংবা অর্ধসিদ্ধ আন্ডার ফান্ডায় – জীবন যতই দ্রুতগামী হোক না কেন – বঙ্গ জীবনের সে রস আর নেই। কষে পাঁঠার মাংস রাঁধলে কোলস্টেরল চোখ রাঙায়। আর খান দশেক রসগোল্লা পাকস্থলীতে ক্যুরিয়ার করলে সুগার বাবাজীবন ফানসের মতন উর্ধগামী হন। এভাবে কি আর দিন চলে ! পড়তির দিনে স্মৃতিই ভরসা। রসগোল্লার রসে টাইম মেশিনে চেপে ডুব সাঁতার দিয়ে উঠলাম।  দেখুন সোজা কোথায় বলি , খাওয়া ঐ জিহ্বা পর্যন্তই মানে যেটুকু স্বাদেন্দ্রিয় সক্রিয় থাকে ! তারপর খাদ্যনালীর সরু পথ বেয়ে...

Read More

অনির্বান সরকারের ফিল্ম কাগজের নৌকো

ভরা বর্ষার দিন রাত।  শহরের আনাচে কানাচে জল জমে। এখনকার ব্যস্ত শৈশব কাগজের নৌকো বানানোর সময় পায় না। কিন্তু এই কলকাতার নগরজীবনে যে শৈশব বেড়ে উঠত সত্তর , আশি কিংবা নব্বয়ের দশকে তারা বর্ষার আকাশ কালো দিনে কাগজ দিয়ে নৌকো বানিয়ে ভাসিয়ে দিতো বর্ষার জমা জলে. সেই নৌকো ভাসতে ভাসতে পারি জমাতো অজানার পানে । অনির্বান সরকারের ফিল্ম ‘কাগজের নৌকো’ ভাবনার প্রকাশে মাধ্যম হিসেবে ভেবেছে কাগজের নৌকোকে।  গল্পের ধারা এগিয়েছে দুটি চরিত্রকে ঘিরে। তথাগত আর নন্দিনী। তথাগত সাজাপ্রাপ্ত আসামী।  বন্ধ জীবনের অর্গল ঠেলে সে চিঠি লেখে মুক্তিকে।  আর নন্দিনী বেনারসের বাঙালি। সে চিঠি লেখে বন্ধনকে।  এই চিঠি লেখা বা চিঠি পাঠানো নির্দিষ্ট...

Read More

বিরিয়ানি জিন্দাবাদ – মানস বন্দ্যোপাধ্যায়

শহরের ছেলে ছোকরা থেকে শুরু করে সব বয়সের মানুষেরই প্রিয় খাবারের অন্যতম বিরিয়ানি। শহর কলকাতা কিংবা কলকাতার আশেপাশের ছোট বড় মাঝারি নানারকম দোকানে বিরিয়ানির নানা রকমফের।হলুদ সাদা চাল , চিকেন কিংবা মটনের মন ভালো করা পিস্ , আর মস্ত আলুর টুকরো মিশিয়ে বাঙালীর এক এবং একমাত্র হার্ট থ্রব এখন বিরিয়ানিই। কিন্তু এই বিরিয়ানি এলো কথা থেকে ? এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে খাদ্য গবেষকরা কিন্তু বেশ চিন্তায়।  বিরিয়ানির আদি বাসস্থান পারস্য। খুব সম্ভবত চতুর্দশ শতকে বিরিয়ানি ভারতে এন্ট্রি নেয়। তখন কিন্তু বিরিয়ানিতে আলুর ব্যবহার ছিলো না। আসলে এদেশে তখন আলু মিলতই না। পর্তুগিজ শাসকদের হাত ধরেই এ দেশে আলুর আমদানি শুরু...

Read More

প্রেম /অপ্রেম – বর্ণনা রায়

প্রতি রাতে একটা হাত আমার শরীরময় হাত বুলায়… আমার যোনি থেকে শিরদাঁড়া হয়ে দুই বুকের উপত্যকায়… নিশ্বাস আটকে আসে আমার … যন্ত্রণা করে ওঠে দুই পায়ের মাঝখানে.. মাঝে মাঝে মনে হয় চিৎকার করে উঠি “ঘুম পেয়েছে, ঘুমোবো, আর পারছিনা” সে বলে “এটাই তো ভালবাসা” আমিও মেনেনি প্রতিদিন.. একটা মাংস পিন্ডর গন্ধ পাই… আমার গা ঘুলিয়ে ওঠে.. তার পর আমার শাড়ি, ব্লাউজ একে একে আলাদা হতে থাকে আমার থেকে… অনেক রাতে আমার পায়ের নুপুর, হাতের চুরি চিৎকার করে কাঁদতে কাঁদতে ক্লান্ত হয়ে ঘুমিয়ে পড়ে… তার পর এক সময় আমিও ঘুমিয়ে পড়ি.. সে বলে “এটাই তো ভালবাসা” ছোট্ট থেকে কবির লেখায় পড়েছি “ভালোবাসা কারে কয়, সে কি কেবলই যাতনা ময়” তখন যাতনাকে ভেবেছি যন্ত্রণার প্রতিছবি… এখন বুঝতে শিখে গেছি যন্ত্রণা আর যাতনার...

Read More

একটি শেষের ইতিকথাঃ আমার ছবির গল্প…- উত্তরায়ণ সেনগুপ্ত

ছবি বানাতে ভাল লাগে। বিশেষ করে ডকুমেন্টারি বানাতে গিয়ে এত কিছু না চেয়েও পাওয়া যায়, যেটা হয়ত স্বপ্নেও ভাবা সম্ভব ছিল না। অবশ্য ভাবনাচিন্তায় সময়ের ফেরে অজান্তে ছবি ছলকে গেলে আর সেই বিশেষ মুহূর্তটা খুঁজে পাওয়াই মুশকিল হয়। আর এখানেই ডকু বানানোর আনন্দ। প্রতি মিনিটে আশ্চর্য হওয়ার মজা। ফিকশনের সাথে আমার আদৌ কোন বিরূপতা নেই। কিন্তু, বাঁধাধরা স্ক্রিপ্ট আর কাঁহাতক ভাল লাগে! রোজ ভাবনায় নতুন নতুন মোড় আসুক। সেটা মন্দ কিসের… বেশ কয়েক মাস যাবৎ একটা ছবি করছি। চরিত্রগুলো তৈরি করতে হয় নি। কারন প্রথমত এটা ডকুমেন্টারি এবং দ্বিতীয়ত আমার ছবির চরিত্রগুলো রোজকার পর্দায় দেখা ক্লিশে চরিত্রদের থেকে একদমই...

Read More

ষ্টুডিও সহযোগী

ব্লগ সহযোগী

ইভেন্ট সহযোগী

Recent Posts

Free WordPress Themes, Free Android Games