ভরা বর্ষার দিন রাত।  শহরের আনাচে কানাচে জল জমে। এখনকার ব্যস্ত শৈশব কাগজের নৌকো বানানোর সময় পায় না। কিন্তু এই কলকাতার নগরজীবনে যে শৈশব বেড়ে উঠত সত্তর , আশি কিংবা নব্বয়ের দশকে তারা বর্ষার আকাশ কালো দিনে কাগজ দিয়ে নৌকো বানিয়ে ভাসিয়ে দিতো বর্ষার জমা জলে. সেই নৌকো ভাসতে ভাসতে পারি জমাতো অজানার পানে । অনির্বান সরকারের ফিল্ম ‘কাগজের নৌকো’ ভাবনার প্রকাশে মাধ্যম হিসেবে ভেবেছে কাগজের নৌকোকে।  গল্পের ধারা এগিয়েছে দুটি চরিত্রকে ঘিরে। তথাগত আর নন্দিনী। তথাগত সাজাপ্রাপ্ত আসামী।  বন্ধ জীবনের অর্গল ঠেলে সে চিঠি লেখে মুক্তিকে।  আর নন্দিনী বেনারসের বাঙালি। সে চিঠি লেখে বন্ধনকে।  এই চিঠি লেখা বা চিঠি পাঠানো নির্দিষ্ট প্রথা মেনে , পোস্টাপিসের স্ট্যাম্প , থামবন্দি চিঠি নয়। ফিল্মমেকারের ভাবনায় চিঠি এখানে রূপ নেই কাগজের নৌকার।সেই নৌকা ভেসে যায় অজানায়। 

অনির্বান সরকারের এই ফিল্মে নন্দিনী আর তথাগতের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন রাজশ্রী আর শুভ্রদীপ। অনির্বানের পূর্ববর্তী কাজ দেশে ও বাইরের একাধিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে প্রসংশিত। কাগজের নৌকোর প্রিমিয়ার হতে চলেছে ১৮ ই আগস্ট।  অপেক্ষা শুরু। প্রত্যাশা এই নতুন ভাবনার ফিল্ম সবার ভালো লাগবে। 
( কভার ছবিতে নন্দিনীর চরিত্রে রাজশ্রী ভট্টাচার্য )
Facebook Comments