বাহ, বেশ লাগছে তো দেখতে
কাজের বোঝা থেকে চোখ তুলতেই
সবকিছু অন্যরকম।
ভিতরের সব হিংসা, রাগ, কান্না মুছে যায়।
জানলার লোহার গরাদের ওপারে
ছোট্ট মালভূমি, এপাশে – ওপাশে ঝোপ জঙ্গল।
দূরে বহুদূরে ঘন, গাঢ় – হাল্কা সবুজ
পেড়িয়ে হাল্কা হয়ে যাওয়া আবছা দূরত্ব।

আমি হাঁটছি পাথর ডিঙিয়ে
ধোঁয়াশা নেচে বেড়ায় হাওয়ার পাখনায়
ছুঁয়ে যায় বিস্ময় আর ভালোবাসা
মাখামাখি করে আমার খোলা চোখের পাতায়।
এখানে কেউ নেই, কোথাও নেই
নেই কোন সিমানা,
লোহার দরজায় দাঁড়ানো চৌকিদার অথবা
প্রতিদিনের একঘেয়ে জীবনের তেলচিটে গন্ধ।

অনেক উঁচুতে একটা বাজ উরে যায় শান্তিতে।
ওকি কাউকে খুঁজছে?
আমি? আমি কি কাউকে খুঁজছি?
ওফ, দমকা হাওয়ায় পা বাড়ানো দায়,
ধুলোগুলো আনন্দে মাখামাখি খাচ্ছে ধরায়।
আমি উড়ে যাই দূর বহুদূর
ওই যে লাল আগুন আকাশ হাতছানি দেয়
আমিও খুব কাছাকাছি ওই যে বাজপাখির।

আঃ, বড় চেনা এই সুর, কে ডাকে আমায়?
সমস্ত ধুলো, শুধু ধুলোময়।
হাতড়াচ্ছি সবুজ আর আবছা নেশার মাটি
কিছু নেই, কোথায়ও নেই, শুধু আমি আর আমি।
সামনে লোহার গরাদ আর নিয়মের মোটা বই
চোখ ফেরাতেই অন্ধকারের শক্ত চোয়াল।
রোজের বড় ঘড়িটা জানে না শ্বাস ছাড়তে
আমি আছি দাড়িয়ে বর্তমানের হাত ধরে।।

Facebook Comments