যার হাওয়া জল আর ভাতে বেড়ে উঠা, হাফ দেওয়ালের ঘরে আদিখ্যেতা।
আমি সেই সাধারণ..
যার শরীরে নাই জাতের হরফ লিখা, অভিন্ন ভিন্ন যার হয়নি শেখা।
আমি সেই সাধারণ..
যার জিপারের টানে হত বরাবরি ভুল,আর ক্লাসে লজ্জায় মুখ ঢাকত চুল।
আমি সেই সাধারণ
যার চানা বুট খাওয়া আর লেইসারে খেলায় থাকে মশগুল।
আমি সেই সাধারণ
যার নাইকো স্যারের ভেরি গুড রিমার্ক,জীবন পরিমিতির অর্ধবৃত্তের আর্ক!
আমি সেই সাধারণ
যার দিনের শুরুওয়াত বটতলার শিব মন্দিরে, হাজিরার বায়না হবে বলে,
আমি সেই সাধারণ
যার মাসের শেষে, গড়ায় দীর্ঘ শ্বাস..  আর হিসেব লাগায় গলায় ফাঁস।
আমি সেই সাধারণ
যার দিনের শেষ, পাড়ার মোড়ে চায়ে ভেজা বিস্কিটে,
আমি সেই সাধারণ
যার প্রেমিকা, আসে রাতে স্বপ্নের বেক সিটে!
আমি সেই সাধারণ
যার এয়ারপোর্টে যাওয়া বারণ, বাসের সীট আর খোলা হাওয়া সাথী কারণ অকারণ।
আমি সেই সাধারণ
যার মন পড়ে থাকে মায়ের ডাকে.. অস্ফুটে নিবারণ।
আমি সেই সাধারণ
যার খুশি দুএক মাতারবাড়ির প্যাড়া খেতে,আর মেলাঘরের রথ দেখতে।
আমি সেই সাধারণ..
যার গলা ভিজে ফিল্টারের জলে,ঠান্ডা লাগে ফ্রিজের শীতে।
আমি সেই সাধারণ
যার কাজের ফাঁকে ডাকে নদীর ধার আর বসন্তের কোকিল
আমি সেই সাধারণ
যার রোদে পোড়া দেহে, শক্তি অনাবিল।
আমি সেই সাধারণ
যার ক্ষয়ে যাওয়া দেহ ধরবে পাড়ার কয়েক জন,যারা শুদ্ধ মুখে নিথর কানে পৌঁছুবে ‘বল হরি হরি বোল’।
আমি সেই সাধারণ
যার এক সময়ে মায়ের মালিশ করে দেওয়া ত্বক হবে বটতলার গ্যাসের আগুনে লাল,
আমি তুচ্ছ সাধারণ
যার পাশ ফিরে হয়তো আপনি ডেইলি ফিরে যান,
আমি সেই সাধারণ
অব্যেক্ত পুরুষ..।।

রাহুল রাজ চৌধুরী

রাহুল রাজ চৌধুরী

ত্রিপুরার রাহুল রাজ্ ভৌগোলিক ভাবেই এই বাংলা থেকে দূরে , মানসিক ভাবে সব বাঙালিইতো একই ভূখণ্ডের বাসিন্দা।

Facebook Comments