Month: April 2017

সমাজ – সুজাতা মিত্র

আজ আমি তোমায় চুমু খাবো প্রকাশ্য রাস্তায়, আমার ঠোঁটের রঙে রাঙিয়ে দেব তোমার ঠোঁট। আমি জানি তুমি কিছু না বললেও,অনেক জোড়া চোখ আমার দিকে ঘৃণা ছুঁড়ে দেবে, তারা বলবে মেয়েটা নিলজ্জ, বেহায়া। কিন্তু আমি জিগ্যেস করবো তাদের, কোথায় থাকো তোমরা ? যখন প্রকাশ্য রাস্তায় দিনের আলোতে বা রাতের অন্ধকারে আমার মতো অজস্র মেয়ে ছিন্ন বস্ত্র নিয়ে রাস্তায় পড়ে থাকে, কোথায় যায় সেই চোখ গুলো যখন তোমাদের মতো শিক্ষিত ‘সুপুরুষ’ রা ভক্ষক হয়ে ওঠে, কোথায় থাকে তোমাদের সমাজ যখন সেই শিশুটি ধর্ষিত হয়ে নিছক মেয়েছেলে বনে যায়। জানি তোমরা অন্ধত্বের শিকার, তাই বলি তোমরা চোখ বন্ধ করেই থাকো আর ধর্ষিত হয়ে যাক পুরো সমাজ টা। আর এই নারী যখন খড়্গ হাতে রক্ষক হবে তখন মুখ লুকিয়ে থেকো ধর্মের পেছনে তোমরা, আজ বরং আমায় চুমু খেতে দাও প্রকাশ্য রাস্তায় । সুজাতা মিত্র লেখা লিখির আগ্রহ ছোটবেলা থেকেই, এখন নিয়মিত সোশ্যাল মিডিয়ায় নানা সামাজিক বিষয় নিয়ে লেখা লিখি করেন। সাংবাদিকতা নিয়ে পড়াশুনো করছেন।...

Read More

সম্পর্কের বিবর্তন – সৃজিতা দাস

যা সব আগে ছিল এখন কেন হয়না ? মিসিংলিংক খালি সম্পর্কটা – আবেগ , প্রতিজ্ঞা সব জীবাশ্বে পরিণত ; দুই প্রান্তই এখন মূক স্তব্ধ প্রতিটি মিলন ক্ষণ। নিশ্চুপ কান্নায় বধির প্রতিক্রিয়া , ভাটায় কর্দমাক্ত হৃদয়ে চঞ্চলতার ঢেউ খেলে না । শিশির রং প্রায়  শুষ্ক আর তার সেই প্রিয় তুলি সেও যে আজ বৃদ্ধ , আগের মতো কিছুই এখন আর হয়না যা সব আগে ছিল এখন কেন হয়না? জীবনের ,মনের খণ্ড বিখণ্ড অধ্যায় যেন ছিন্ন মালার এক একটি ফুল অতীত ছিল অভিমান আর গোঁসা , এখন ঝগড়ায় হার জিৎ নইলেই অহমে ছেঁকা। ভবিষ্যতের জল্পনায় বাস্তবের কিল ,চড় বেঁচে থাকার লড়াইয়ে অতীত গদাইলস্কর , সম্পর্কের বিবর্তনে ধৈর্য্য নিষ্ক্রিয় বর্তমানে বিশ্রামে পঞ্চ ইন্দ্রিয়। সৃজিতা দাস স্কুল জীবনের শেষ আর কলেজ জীবনের শুরু , এই সময় থেকেই কবিতায় হাতেখড়ি। অস্মানিয়ার সাথেও যোগাযোগ সেই সময় থেকেই। সাংবাদিকতার ছাত্রী সৃজিতা আগামীদিনে স্যার হতে চায় স্বপ্ন উড়ানে।...

Read More

“ট্রায়াঙ্গুলার” – রোহিত দে

বিচ্ছিরি সব বিকেল, খারাপ হাতের লেখা, পেপারমিন্ট ঠোঁট, আড়চোখের হঠাৎ দেওয়া অভয়, মনখারাপের বীজগণিত, করিডরের ইন্টিগ্রেশনগুলোর উত্তর যেন কত হয়? এই সমস্ত সমীকরণ কখনই অংকের একচেটিয়া নয়…! “আমি কে?” উন্নয়নের অংশীদার আমি প্রগতিশীল বেকার! টিপিকাল দুষ্টু ছেলে, বাচ্চাবেলায় যাদের সাথে মিশতে মা-বাবা বারণ করেন! সঙ্গে একটু দু-একলাইন কবিতা লিখে সমাজ বদলানোর ঝুটো ধারণাও পোষণ করি! মোদ্দা কথা হাইলি সাসপিশাস!...

Read More

ফাগুনের আগুন – ঋক

ছোটবেলা থেকেই এই ফুলটার গন্ধ স্রোতের খুব প্রিয়। ফেব্রুয়ারির এই সময়টা যখন একটু একটু করে শীত কমে মন কেমনের বসন্ত জানলার পাল্লা খুলে দেয়।  স্রোত জীবনদীপের উল্টো পারের বাস স্ট্যান্ডটায়  এসে দাঁড়ালো। বিকেল নিভু নিভু। মায়াবী শহরটা নিয়ন আলোর ফুল সজ্জায় সেজে উঠছে রোজকার মতো। সারাটা দিনের ক্লান্তি সরিয়ে এ সময়ে আমাদের চেনা শহর বাড়ি ফেরে। কেউবা ধরে শহরতলীর পথ। স্রোত ঘড়িতে চোখ বোলালো। বাড়ি ফিরেই টিউশন বাড়ি যেতে হবে। গানের টিউশন। সপ্তাহে দুদিন। বাবা মারা যাবার পর ভাইয়ের পড়াশুনো , মায়ের চিকিৎসা , সাংসারিক খরচপাতি , এমনকি খুঁটিনাটি সব দায়িত্বই স্রোতকে একার হাতে নিতে হয়েছে। নব বসন্তের বিকেলটা স্রোতের...

Read More

গুন্ছা,কোই – অনির্বাণ ঘোষ

আমি তো খুঁজছি সাকি মেহফিল জমছে দ্যাখো তুমি দিও গুন্ছা,কোই আর আমার নামটি লিখো । প্রেশারের পারদ চড়ুক কিছুটা নেশার ঘোরও দেখি কোন্ ম্যাজিক শো-তে সুবহকে সন্ধ্যে করো । এখনও সেন্সে আছি বেসামাল হইনি তেমন চোট পেলে সবচে আগে – মাথায় আসে আর্নিকা মন্ট । অটোতে ওঠার আগে পকেটের খুচরো গুনি শুধু তুমি গান গাইলে অবাক হয়েই শুনি । তুমি তো ব্যাতিক্রমী অচ্ছুৎ সব অব্ভিয়াস্ আমি শুয়ে আকাশ দেখি আর সাজি কোপারনিকাস । তুমি দিও গুন্ছা,কোই আর আমার নামটি লিখো। আমি যদি ঘুমোতে যাই – তো নিজের খেয়াল রেখো ।   অনির্বাণ ঘোষ কবি অনির্বাণ ঘোষ আসমানিয়ার প্রথম দিনের সদস্য।  কবি হিসেবে নিয়মিত লিখেছেন আসমানিয়ার পাতায়।  পেশায় আই টি বিশেষজ্ঞ , কর্মরত আছেন বৃহৎ বহুজাতিক সংস্থায়। তার কবিতা বহুকাল ধরেই বহু মানুষের কাছে ভীষণ প্রিয়।...

Read More

ষ্টুডিও সহযোগী

ব্লগ সহযোগী

ইভেন্ট সহযোগী

Recent Posts

Free WordPress Themes, Free Android Games